‘২০০১ সালেও এমন পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল’/‘ভারতের সঙ্গে আমাদের ৩টি কাঁটাতারের বাধা আছে’ -ড. বিনায়ক সেনের সাথে সাক্ষাত্কার

ড. বিনায়ক সেন। অর্থনীতিবিদ।  বিশ্বব্যাংকে সিনিয়র ইকোনোমিষ্ট হিসেবে যুক্ত র্ছিলেন ২০০৪ থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত। এছাড়া এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, ইউএনডিপিসহ বহু আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানে পরামর্শক হিসেবে কাজ করেছেন। ছিলেন অর্থ মন্ত্রণালয়ের পরামর্শক কমিটির সদস্য (১৯৯৭-২০০১), সরকারি ব্যয় পর্যালোচনা কমিশনের সদস্য (২০০২-০৩)। বাংলাদেশের প্রথম অন্তবর্তীকালীন দারিদ্র্য নিরসন কৌশলপত্র (আইপিআরএসপি) করার ক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন। বর্তমানে বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠান (বিআইডিসি)-এ গবেষণা পরিচালক এর দায়িত্বে রয়েছেন।

উন্নয়ন গবেষণায় ‘সামাজিক ন্যায়বিচার’, ‘জন ক্ষমতায়ন’, ‘নৈতিকতা ও উন্নয়ন’ ইত্যাদি বিষয় তাঁর আগ্রহ ও ভাবনার জায়গা। অর্থনৈতিক, সামাজিক ও রাষ্ট্রনৈতিক বিষয় নিয়ে সম্প্রতি প্রকাশিত ত্রৈমাসিক পত্রিকা ‘প্রতিচিন্তা’-এর নির্বাহী সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। দেশের চলমান অর্থনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে কথা বলেছেন সাপ্তাহিক-এর সঙ্গে।

সাক্ষাৎকার নিয়েছেন বাহরাম খান

সাপ্তাহিক : পুরনো বছরের শেষে এবং নতুন বছরের শুরুতে সবচেয়ে আলোচিত বিষয় হচ্ছে অর্থনীতি। কেউ বলছেন আমরা বড় ধরনের সমস্যায় আছি এবং সহসাই উত্তরণ ঘটবে না। আবার অনেকে বলছেন সমস্যা আছে তবে সঙ্কট নেই। আপনার দৃষ্টিতে দেশের অর্থনীতি কোন জায়গায় আছে বলে মনে করেন?

ড. বিনায়ক সেন : প্রশ্নটা যত ভালো বা সুন্দর এর উত্তরটা ততই কঠিন। আমি হতাশাবাদীদের দলে পড়ি না। বর্তমানে দেশের অর্থনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে হতাশাবাদের যে গল্প উঠেছে আমার মন তাতে পুরোপুরি সায় দেয় না। আমাদের অর্থনীতি নিয়ে চরম হতাশাবাদের যেমন কোনো কারণ নেই, তেমনি অযৌক্তিক আশাবাদেরও কোনো কারণ নেই। প্রথমত, এই সরকারের প্রথম তিন বছর মুদ্রা সম্প্রসারণ নীতি নিয়ে চলছিল। এর মূল লক্ষ্যটা ছিল যাতে প্রবৃদ্ধি আরো বেগবান করা যায়। প্রাইভেট সেক্টরে প্রতি বছর ২৪ থেকে ২৬ শতাংশ ঋণ প্রদান করা হয়েছে। যা হোক, ২০০৯-২০১১ পর্বে সম্প্রসারণশীল মুদ্রাস্ফীতির কারণে বর্তমানে সরকারের সঙ্গে আইএমএফ-এর দরকষাকষি চলছে। ২০০১-১১ পর্বে ব্রোড মানি (গ২)  সরবরাহ ছিল ২২-২৩ শতাংশ। এখন আইএমএফ বলছে এই মুদ্রা সরবরাহের প্রবৃদ্ধিকে ১০-১২ শতাংশে নামিয়ে আনতে। সেটা উচিত হবে না। সরকার তাই সঠিকভাবেই যুক্তি দেখিয়েছে যে প্রবৃদ্ধি যেহেতু ৬ শতাংশ বা তার উপরে, আর মূল্যস্ফীতি যেহেতু ১০ শতাংশ বা তার উপরে, সেহেতু মুদ্রা সরবরাহ ১৬ শতাংশের নিচে নামিয়ে আনা ঠিক হবে না। এতে করে প্রবৃদ্ধি ক্ষতিগ্রস্ত হবে। আমাদের প্রবৃদ্ধিও গতিশীল হয়েছে। প্রবৃদ্ধি বেগবান করার ঝোঁকটা সরকারের শুরু থেকেই ছিল। বাংলাদেশের গত দুই দশকের দিকে  তাকালে দেখা যাবে আমরা একটা রুদ্ধ পথে চলেছি (টাইট-রোপ ওয়াকিং করেছি)। এর মধ্যেও আমরা অনেক অর্জন করেছি। সামাজিক, অর্থনৈতিক, এমডিজি (মিলেনিয়াম ডেভেলপমেন্ট গোল)সহ বেশ কিছু ইতিবাচক অর্জন হয়েছে। এসব অর্জনের সঙ্গে আরেকটি বিষয় হলো আমাদের সরকারের ব্যয়ের পরিধিটা তুলনামূলকভাবে ছিল সীমিত। তুলনামূলকভাবে দক্ষিণ এশিয়ার অন্যান্য দেশে সরকারি ব্যয় যেখানে জিডিপির ২০ শতাংশ বা তার বেশি, সেখানে আমাদের দেশে বহু বছর ধরে সেটা ১৫-১৭ শতাংশের মধ্যে আছে। এর জন্য বড় কারণ হলো অবশ্য কর আদায় কম হওয়া। দ্বিতীয়ত, আমাদের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ প্রায় কখনোই এমন পর্যায়ে যায়নি যেটা দিয়ে ৯-১০ মাসের আমদানি ব্যয় মেটানো যেত। এবার রেমিট্যান্স, বৈদেশিক সাহায্য এবং রপ্তানি কমে যাওয়ায় বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভে চাপ পড়েছে। ঠিক ২০০১ সালেও এমন পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল আওয়ামী লীগের শাসনামলের শেষে এসে। এরপর ক্ষমতায় আসা বিএনপির অর্থমন্ত্রী সাইফুর রহমান একটা অভিযোগ করতেন যে শূন্য কোষাগার রেখে গেছে আওয়ামী লীগ। সেই সময়ে আইএমএফ, বিশ্বব্যাংকসহ আন্তর্জাতিক দাতারা ঢাকায় এসে কড়াশর্তে ঋণের ব্যাপারে আলোচনা করে। ২০০২ সালে রেমিট্যান্সের প্রবাহ বাড়ায় সেই সমস্যা থেকে অনেকটা উত্তরণ হয়েছিল। আজ দশ বছর পর এসেও বৈদেশিক সাহায্য, রেমিট্যান্স রপ্তানি এবং সরাসরি বৈদেশিক বিনিয়োগ কমে যাওয়াতে আগের পরিস্থিতি আবার সৃষ্টি হয়েছে বলে মনে হচ্ছে। তাই স্বল্পমেয়াদি মূল সমস্যাটি হচ্ছে, হঠাৎ করে বৈদেশিক মুদ্রার মজুদটা কমে যাওয়া। এর ফলে আমদানি-রপ্তানির ভারসাম্যের উপর চাপ পড়েছে। টাকা-ডলারের বিনিময় হারে প্রভাব পড়েছে।

তাই সামগ্রিকভাবে দেখতে গেলে ২০১১-১২ অর্থবছরটা একটু কঠিন বছর হিসেবেই বিবেচিত হবে। তবে আমাদের প্রবৃদ্ধি ৬-৭ শতাংশের মধ্যে উঠানামা করছে। প্রয়োজনে প্রবৃদ্ধিকে কিছুটা খেসারত দিয়ে হলেও সামষ্টিক অর্থনীতিকে সন্তোষজনক জায়গায় আনতে হবে। অর্থাৎ মুদ্রাস্ফীতিটা কমাতে হবে। আমদানি কমিয়ে আমদানি-রপ্তানির মধ্যে ভারসাম্য আনতে হবে। আমদানি কমালে বিনিয়োগে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে। তারপরও এই উদ্যোগগুলো নিতে হবে অনেকটা বাধ্য হয়েই।

সাপ্তাহিক : আওয়ামী লীগ ২০০১ এর মতো এবারও একই সমস্যায় দুর্বলতা দেখাল। অতীত থেকে শিক্ষা নেয়নি বলেই কি এই অবস্থা?

বিনায়ক সেন : এটা শুধু আওয়ামী লীগের জন্য না। সব সরকারের আমলেই কিছু বিষয়ের ক্ষেত্রে আমরা বলে এসেছি। এক দশক আগে আমি এবং বর্তমান বিআইডিএসের মহাপরিচালক মুস্তফা মুজেরি ২০০৩ সালে সরকারের পক্ষ হয়ে আইপিআরএসপি করেছিলাম। আমরা বলেছিলাম তেলের দাম সমন্বয় করা প্রয়োজন। আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বাড়লে আমাদের বাজারেও বাড়বে। আন্তর্জাতিক বাজারে দাম কমলে আমাদেরও কমাতে হবে। কারণ তেলের ভর্তুকির সুবিধা শুধু গরিব মানুষ পায় না। এই সুবিধার বেশিরভাগ ধনী মানুষ পায়। তাছাড়া তেল আমাদের নিজস্ব উৎপাদিত পণ্য না। এর থেকে সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীতে যদি আরো বেশি সুযোগ দেয়া হয় সেটা ভালো উদ্যোগ হবে। কারণ এর পুরোটার সুফল ভোগ করে গরিব মানুষেরা।

সাপ্তাহিক : আমাদের বর্তমান অর্থনৈতিক সমস্যাটা কি পর্যায়ে আছে?

বিনায়ক সেন : সাধারণভাবে বলতে গেলে অর্থনৈতিকভাবে আমরা একটা প্রবল চাপের মধ্যে আছি। তবে এই চাপটা বৈশ্বিক অর্থনীতির ব্যতিক্রম ধারায় নয়। কারণ ইউরোপ-আমেরিকা থেকে শুরু করে প্রতিবেশী দেশগুলোও এই সমস্যা মোকাবিলা করছে। আমাদের ওপর এই চাপটা যে আসবে তা বছরের শুরু থেকেই বোঝা যাচ্ছিল। বিশেষ করে গত বছরের (২০১১) জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারি মাসে অর্থমন্ত্রী আমাদের বলেছিলেন, সামনের বছরটা আমাদের জন্য একটু চাপের হবে। সে ক্ষেত্রে আমরা পরামর্শ দিয়েছিলাম যে, বৈদেশিক সাহায্য পাওয়ার ক্ষেত্রে এবং সরাসরি বৈদেশিক বিনিয়োগের দিকে যেন একটু বেশি নজর দেয়া হয়। অন্যান্য বছরের তুলনায় বাড়তি উদ্যোগ না নিলে সমস্যা হতে পারে। তাই হয়েছে। কারণ মধ্যপ্রাচ্যসহ নানা সমস্যায় রেমিট্যান্স প্রবাহের ছন্দপতন এই সমস্যা তৈরি করতে পারে বলে আমরা মনে করেছিলাম। যদি তথ্যগত দিক বিশ্লেষণ করা হয় তাহলে দেখা যাবে বিগত ছয় মাসে আমরা তেমন কোনো বৈদেশিক সাহায্য পাইনি। উপরন্তু নানান ঋণ পরিশোধ করতে গিয়ে আমরা আরো বেশি দিয়ে দিয়েছি। আরেকটা বিষয় হলো ডলারের বিপরীতে টাকার মান কমে যাওয়ার ব্যাপারটিকে অনেকেই বড় করে দেখাচ্ছেন। এটা মূলত জনতুষ্টিবাদী পপুলিস্ট মত প্রচার ছাড়া আর কিছু না। বর্তমান সমস্যার এটা কারণ নয়, সমস্যা মোকাবিলার একটি উপায় মাত্র। অর্থনীতির ছাত্র হিসেবে মার্শাল-লার্নার কন্ডিশনের কথা আমরা জানি। অবমূল্যায়নের মাধ্যমে আমদানি নিরুৎসাহিত হয়ে রপ্তানি উৎসাহিত হবে, যা চলতি বৈদেশিক বাণিজ্যের লেনদেনে ভারসাম্য আনতে সাহায্য করবে।

তাই আমি মনে করি, বিশ্বজুড়ে যে অর্থনৈতিক ভাঙ্গাগড়া চলছে তার শুরু যুক্তরাষ্ট্র দিয়ে। এখন চলছে ইউরোপে। ভবিষ্যতে এটা ব্যাপক আকারে হলে আমাদের রপ্তানির ক্ষেত্রে সমস্যা তৈরি হতে পারে সেদিকে আমাদের নজর রাখতে হবে। তবে আমরা যেসব প্রোডাক্ট নিয়ে রপ্তানি বাজারে আছি সেগুলো খুব বেশি প্রভাবিত হওয়ার সম্ভাবনা কম। কিন্তু সতর্কতামূলক পদক্ষেপ অবশ্যই নিতে হবে। হিসাব কষে অপ্রয়োজনীয় ব্যয় বাদ দিতে হবে।

সাপ্তাহিক : অনেকে বলছেন এডিপি কাটছাঁট করতে হবে…

বিনায়ক সেন : এডিপি কাটছাঁট জনতুষ্টিবাদী পপুলিস্ট কথা হিসেবে বিবেচিত। আমাদের ১৬৩ হাজার কোটি টাকার বাজেটের মধ্যে মাত্র চারভাগের একভাগ এডিপি বরাদ্দে থাকে। এর মধ্যে দশ ভাগ বাস্তবায়ন হয় না। সেই জায়গায় কাটছাঁট করলে তো গরিবের ওপর চাপ পড়বে। যেমন ধরুন একটা কালভার্ট যদি কোনো গ্রামে তৈরি হয় তাহলে একজন নিজের হাতে টাকা না থাকলেও গ্রামীণ ব্যাংক কিংবা ব্যাংক থেকে লোন নিয়ে একটা রিকশাভ্যান কিনবে। তার হাতে টাকা আসবে। নিজে চলবে, ঋণের কিস্তি দিবে আবার সঞ্চয়ও করবে। এই যে একটা প্রভাব, এটা কিন্তু কম গুরুত্বপূর্ণ নয়। তাই এডিপি খাতে হাত দেয়ার আগে চিন্তা করতে হবে। তবে কিছু মেগা প্রজেক্টের ক্ষেত্রে কাটছাঁটের চিন্তা করা যেতে পারে। সরকারের চলতি ব্যয়কে চরমভাবে নিয়ন্ত্রণ করে ব্যয়-সাশ্রয়মূলক ব্যবস্থা নেয়া উচিত। সরকার অপ্রয়োজনীয় লোক নিয়োগ বন্ধ রাখতে পারে যেগুলো গ্রামীণ অর্থনীতিতে তেমন প্রভাব ফেলবে না। তাই আমি মনে করি গ্রামীণ অবকাঠামো কৃষি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য এবং সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচিতে কোনো কাটছাঁট করা ঠিক হবে না। কারণ এগুলো সাধারণ মানুষের জীবনযাত্রা ও সঞ্চয়ে অবদান রাখে।

ফিসক্যাল পলিসি এবং মনিটরিং পলিসির মধ্যে একটা সঙ্গতিহীনতা আছে এখনো। কারণ আমাদের দেশে সামষ্টিক অর্থনীতিতে সমন্বয়ের কোনো প্রাতিষ্ঠানিক মেকানিজম কাজ করছে না। প্রথম পাঁচসালা পরিকল্পনার মতো আমাদের পরিকল্পনা কমিশনে কোনো দক্ষ অর্থনীতিবিদ ও প্রযুক্তিবিদ নেই। আমাদের অর্থ মন্ত্রণালয়ে কোনো অর্থ উপদেষ্টা নেই। আমাদের কেন্দ্রীয় ব্যাংক এখনও কুশলী অর্থনীতিবিদ পরামর্শকদের দ্বারা যথেষ্ট সমৃদ্ধ নয়। অথচ এর সবই রয়েছে ভারতে ও পাকিস্তানে। এই কারণেই বলছি, অর্থনীতিতে নিবিড় তদারকির কোনো ব্যবস্থা নেই।

সরকারকে চিন্তা করতে হয় তার ঋণের বিষয়ে। এই ঋণ কিসের জন্য? যদি উৎপাদনমুখী খাতের জন্য হয় তাহলে অন্য কথা, যেমন বিদ্যুৎ খাতে। আর যদি অনুৎপাদনশীল খাতের জন্য ঋণ হয় তাহলে সমালোচনার অনেক জায়গা আছে। আবার বিদ্যুৎ নিয়ে যারা এখন উচ্চবাচ্য করছেন তারাই কিন্তু কয়েক বছর আগে এগুলো নিয়ে কথা বলেছেন। প্রয়োজনের বাইরে কথা বললে তো হবে না।  কুইক রেন্টাল ব্যয়বহুল পদ্ধতি ঠিকই, কিন্তু কুইক রেন্টাল পদ্ধতির মাধ্যমে নতুন করে যে বিদ্যুৎ এলো তার প্রবৃদ্ধি-অভিঘাতও বিবেচনায় নিতে হবে।

সাপ্তাহিক : ২০০৭ সালের দিকে বিশ্ব অর্থনীতির যে মন্দাবস্থা শুরু হয়েছিল সেই সময়ে বাংলাদেশ ভালো করেছে। এবার আমরা চাপে পড়লাম কেন?

বিনায়ক সেন : গত দশকের শেষ দিকে যে বিশ্বমন্দা আমরা আমেরিকায় দেখেছি তা প্রথমে হাউজিং সেক্টরের সমস্যা নিয়ে শুরু হয়। এরপর আক্রান্ত হয় ঐ দেশের ব্যাংক সেক্টর, এরপর সেটি উৎপাদন খাতকে প্রভাবিত করা শুরু করে। শ্রমের বাজারের উপরও প্রভাব পড়তে থাকে ধীরে ধীরে। ফলে পুরো অর্থনীতিকে চাপে ফেলে। আর সেই সময়ে বিশ্ব অর্থনীতির যে মন্দাবস্থা চলছিল তখন আমাদের দেশে এক-এগারোর তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রতি যে কোনো কারণেই হোক বৈদেশিক সাহায্যের গতিটা ভালো ছিল। একই সঙ্গে রেমিট্যান্সের প্রবাহও সন্তোষজনক ছিল। কিন্তু বর্তমান সরকারের আমলে বৈদেশিক সাহায্যও প্রতিকূলে যায়, একই সঙ্গে রেমিট্যান্সও কমতে শুরু করে মধ্যপ্রাচ্যে আরব-অসন্তোষকে কেন্দ্র করে।

আবার চলতি অর্থবছরের আগের বছরে আমাদের রপ্তানির বাৎসরিক বৃদ্ধির হার ছিল ৪১ শতাংশ। যা ছিল অভাবনীয়। তাই স্বাভাবিকভাবেই এটা এখন কমছে, কমে এখন ১৭ শতাংশে নেমে এসেছে। আরেকটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো তখন তেলের দাম বিশ্ববাজারে কমে গিয়েছিল। এখন সেটা বাড়ছে। তাছাড়া অভ্যন্তরীণ অর্থনীতিতে প্রত্যক্ষ বিদেশি বিনিয়োগ আকৃষ্ট করতে আমরা কোনো সরকারের আমলেই সফল হইনি। তবে একটু ভিন্ন দৃষ্টিকোণ থেকে দেখলে কয়েকটি অভ্যন্তরীণ বিষয়ও বর্তমান সমস্যায় প্রত্যক্ষ-পরোক্ষ অবদান রেখেছে। যেমনÑ পদ্মা সেতু নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগ, শেয়ারবাজার কেলেঙ্কারি, অধ্যাপক ইউনূস ও তার ক্ষুদ্রঋণ প্রতিষ্ঠান গ্রামীণ ব্যাংক সংক্রান্ত ঝামেলা এবং রাজনৈতিকভাবে অহেতুক অসময়োপযোগী বাগ্বিতণ্ডা। এগুলো আপাতদৃষ্টিতে খুব বেশি অর্থনৈতিক বিষয় মনে না হলেও সামগ্রিকভাবে এসব বিষয় সমস্যায় পুষ্টি যোগায়। অন্তর্দৃষ্টি দিয়ে এটা সরকারকে বুঝতে হবে। বুঝতে হবে যে প্রবৃদ্ধি বাড়া সত্ত্বেও, দারিদ্র্য ক্রমাগত কমা সত্ত্বেও, শিক্ষা-স্বাস্থ্য খাতে সাফল্য সত্ত্বেও কোনো নির্বাচিত সরকারকেই জনগণ পরপর দু’বার ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেনি। এর কারণ কি? এটা একটা ধাঁধা। আমার ধারণা, রাজনৈতিক নেতৃত্ব কতটা বিনয়ী, কতটা আন্তরিক, কতটা শিষ্টাচারসম্পন্ন ব্যবহার করেন সেসব সূচককে জনগণ খুবই গুরুত্ব দেয় পুনরায় ভোট দিয়ে নির্বাচন করার ক্ষেত্রে। এখন যে সমস্যা চলছে তার শেষ এখানেই নয়। ইউরোপের সমস্যা যদি গ্রিস-ইটালি ছাড়িয়ে ফ্রান্স-জার্মানিতে ছড়ায়, সেটা আমাদের জন্য আরো বড় হুমকি হতে পারে। যদিও এমনটা হবেই এমন মনে করছি না। আবার যদি হয়ও তাহলে আমাদের যেসব খাতে উৎপাদন-রপ্তানি আছে সেগুলো বাধাগ্রস্ত হওয়ার সম্ভাবনা তুলনামূলকভাবে কম। তাই খুব বেশি চিন্তা না নিয়ে আমাদের সতর্ক হয়ে চলতে হবে। সতর্কতা সবসময়ই অবলম্বন করা প্রয়োজন কি কথায়, কি কাজে।

সাপ্তাহিক : বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ সমস্যার ক্ষেত্রে বৈদেশিক সাহায্য এবং প্রত্যক্ষ বৈদেশিক বিনিয়োগ সমস্যা তৈরি করল কেন? এই ক্ষেত্রে ইতিবাচক অর্জন কিভাবে সম্ভব?

বিনায়ক সেন :  বৈদেশিক সাহায্য এবং প্রত্যক্ষ বৈদেশিক বিনিয়োগে বাংলাদেশের পিছিয়ে থাকার অন্যতম কারণ হচ্ছে আমাদের অর্জনগুলো আন্তর্জাতিক সমাজে ঠিকমতো তুলে ধরা হচ্ছে না। না হয় আমাদের এই অবস্থা থাকবে কেন? আমরা কি আফ্রিকার দেশ? আন্তর্জাতিকভাবেই তো আমাদের স্বীকৃতি দেয়া হচ্ছে যে এমডিজি অর্জন, জেন্ডার সমতা, শিশুমৃত্যু, মাতৃমৃত্যু, দারিদ্র্য নিরসন, ঋণের পরিশোধ এসব ক্ষেত্রে আমাদের অর্জন তৃতীয় বিশ্বের অনেক দেশ থেকে বেশি। এখন কোথায় একজন মন্ত্রীকে ঘিরে বিতর্ক হলো সেই ইস্যুটাকে কেন্দ্র করে সবকিছু থেমে যাবে এটা তো ঠিক না। হ্যাঁ দুর্নীতি হলে সেটাও আমরা আমলে নেব। তার মানে এই নয় যে, একটা ঘটনাকে কেন্দ্র করে আমাদের সব অর্জন নষ্ট হয়ে যাবে। অবশ্য এক্ষেত্রে পদক্ষেপ নিতে সরকার অনেক বেশি সময় নিয়েছে। কিন্তু আমরা ক্রমাগত খারাপ করছি বিষয়টা সে রকম নয়। যেমন মুডিস (আন্তর্জাতিক রেটিং সংস্থা) টিআই (ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল) এসব সংস্থার রেটিংয়েও আমরা ভালো করছি। ঋণ, ঋণের সুদ পরিশোধের ক্ষেত্রেও আমরা ভালো করছি। তাহলে আমরাই সবচেয়ে বেশি এগিয়ে থাকার কথা বৈদেশিক সাহায্য পাওয়ার ক্ষেত্রে। তবে বৈদেশিক সাহায্যের ক্ষেত্রে দাতাদের মনস্তত্ত্বের প্রতি আরো নজর দেয়া উচিত ছিল। যোগাযোগ মন্ত্রণালয় থেকে বিতর্কিত যে মন্ত্রীকে সরানো হলো তাকে আইসিটি খাতের দায়িত্ব দেয়া উচিত ছিল না। শুধু এ কারণে ডিসেম্বরের তৃতীয় সপ্তাহে প্রায় পাস হয়ে যাওয়া ৮০ মিলিয়ন ডলারের একটি বৈদেশিক সাহায্য বিশ্বব্যাংকের বোর্ড বাতিল করে দেয়। অথচ এই সাহায্যটি এখন পাওয়া গেলে আমাদের বৈদেশিক মুদ্রার মজুদ পরিস্থিতি আরো সহনীয় পর্যায়ে আসত। আমার মতে, এরকম বিতর্কিত ব্যক্তিকে এখন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব না দেয়াই দেশের স্বার্থে  উচিত ছিল। অবস্থা ভালো হলে এসব ব্যক্তির অন্যত্র ব্যবহার হতে পারত।

সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয় পাইপলাইনে অনেক সাহায্য-সহযোগিতা আছে। প্রশ্ন হচ্ছে সেগুলো ঠিকমতো আসে না কেন? এর জন্য দরকার উচ্চপর্যায়ের উদ্যোগ। যেমনটা ঐতিহাসিকভাবে সিঙ্গাপুরে কোরিয়ায় হয়েছে। সংশ্লিষ্ট সচিবদের টার্গেট দেয়া হোক যে, এই সময়ের মধ্যে পাইপলাইনে আটকে থাকা সাহায্যকে ছাড়িয়ে আনার কাজগুলো সম্পন্ন করতে হবে। সেজন্য বিদেশিরা কি কিভাবে পেতে চায় সেগুলো নিয়ে আলোচনার মাধ্যমে তিনি (সচিব) ব্যবস্থা করবেন। এর জন্য প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রে সচিবদের বা সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের (প্রকল্প পরিচালকদের) ইনসেনটিভের ব্যবস্থা রাখতে হবে। ক্রাইসিস নতুন কিছুর জন্ম দেয়। সে রকম মৌলিক উদ্যোগ আমাদের নিতে হবে। রাজনীতিবিদদের এ নিয়ে চিন্তা করতে হবে। শুধু যে নিয়মে ছিলাম ঘুরেফিরে সেই নিয়মেই থাকব এটা হতে পারে না। শুধু তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা রাখতে হবে বা রাখব না এসব বিষয় নিয়ে অহেতুক সময় নষ্ট করে পাঁচ বছর কাটিয়ে দিলে হবে না। রাজনীতিবিদদের অর্থনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি আরো প্রসারিত হতে হবে। বর্তমানে যে চাপের মুখে অর্থনীতি এখনই অর্থনৈতিক প্রাতিষ্ঠানিক সংস্কার করার সময়। রাষ্ট্রায়ত্ত খাতে এটা করা যায়, প্রকল্প-সাহায্য ব্যবহারের ক্ষেত্রে এটা করা যায়। কর আদায়ের ক্ষেত্রে এটা করা যায়। এটাই এখন জনদাবি নাগরিক সমাজের দাবি হওয়া উচিত। দেশের উন্নতির সঙ্গে এটি গভীরভাবে জড়িত। শুধু অর্থমন্ত্রী অর্থনৈতিক অবস্থা নিয়ে আলোচনা করবেন আর মাথা ঘামাবেন বিষয়টা ঠিক না। আইন প্রণেতা, সরকারি দল, বিরোধী দল সবাইকে এই বিষয়গুলোকে নিয়ে দেশের জন্য কাজ করতে হবে। চিন্তা করতে হবে। তৃতীয় বিশ্বের যেসব দেশ রাজনৈতিকভাবে স্থিতিশীল সেসব দেশেই বৈদেশিক সাহায্য বিনিয়োগের সুন্দর ধারাবাহিকতা থাকে।

সাপ্তাহিক : প্রধানমন্ত্রী বলেছেন বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ না থাকলেও দেশ চলেছে। এখনো চলতে কোনো সমস্যা হবে না…

বিনায়ক সেন : রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ বিভিন্ন ফোরামে নানান দৃষ্টিভঙ্গি থেকে কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী এই কথা কোন দৃষ্টি থেকে বলেছেন সেটা আমি জানি না। কিন্তু তিনি যদি অর্থনীতিবিদদের সঙ্গে আলোচনায় এরকম কথা বলতেন তাহলে আমরা সেটা নিয়ে কথা তুলতাম তবে এই ক্ষেত্রে একটা উদাহরণ আমি দিতে চাই। চীন ১৯৯৫ সাল থেকেই এলডিসি থেকে বেরিয়ে বৃহৎ অর্থনৈতিক শক্তি হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছে। কিন্তু সেই সময়েও তারা বিশ্বব্যাংকের কাছে বলেছিল যে, আমাদের দেশে অনেক দরিদ্র লোকজন আছে তাই ওউঅ ঋণের মতো সহজ শর্তে ১% সুদের ঋণটা চালু রাখা হোক। দেখুন তাদের দৃষ্টিভঙ্গি। তখন তারা যে অবস্থায় ছিল তখন ঐ ঋণ না পেলেও যে খুব সমস্যা হতো তা কিন্তু নয়। অথচ তারা বলেছে, চেয়েছে। আমার কথা হচ্ছে আমাদের ভেতরে কি শক্তি আছে সেটা তো নিজেরা বুঝব। তাই বলে সুবিধাজনক সুযোগ ছাড়ব কেন? ঠিক আছে আমাদের কৃষি উৎপাদনে ইতিবাচক অর্জন আছে। খাদ্য ঘাটতির কারণে যে রাজনৈতিক সমস্যা হয় এরকম কোনো পরিস্থিতিতে হয়ত আমরা নেই। তাই বলে তৃপ্তির ঢেঁকুর তোলার চেয়ে সামনের দিনে এই পরিস্থিতিকে কিভাবে আরো শক্ত করা যায় সেই উদ্যোগ নেয়া দরকার। তাই সর্বোচ্চ রাজনৈতিক জায়গা থেকে আমরা সামনের দিনের ইতিবাচক অর্জনের লক্ষ্যে কাজ করার দিকনির্দেশনা পেলে বেশি উপকৃত হব।

সাপ্তাহিক : সামষ্টিক অর্থনীতির অব্যবস্থাপনার কথা বলা হচ্ছে। বিষয়টা যদি বুঝিয়ে বলেন।

বিনায়ক সেন : সামষ্টিক অর্থনীতি হলো অর্থনীতির আর্থিক খাত, রিয়েল সেক্টর বা উৎপাদনশীল খাত, বৈদেশিক খাত সব দিকের মধ্যে সমন্বয় বজায় রাখা। এখানে একটা সূচক আরেকটার উপর নির্ভরশীল। ফলে যে কোনো একটি বা দুটি বিষয় যখন তার স্বাভাবিকতা হারায় তখন বাকি সূচকগুলোও প্রভাবিত হয়। তেমনি এখন আমাদের যে অব্যবস্থাপনার কথা বলা হচ্ছে তার মানে অর্থনীতির সব শাখা এলোমেলো হয়ে যায়নি। বরং যে কয়টি গুরুত্বপূর্ণ সূচকে আশাব্যঞ্জক বা স্বাভাবিক প্রবণতা থাকার কথা ছিল সেটা হয়নি। যার কারণে সামগ্রিকভাবে প্রভাব পড়েছে। সামষ্টিক অর্থনীতির কাজ শুধু মূল্যস্ফীতি কমিয়ে রাখা না। বরং প্রবৃদ্ধি গতিশীল রেখে মূল্যস্ফীতিকে নিয়ন্ত্রণে রাখা। এই ক্ষেত্রে নীতিনির্ধারকদের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ। যেমন এবার আমাদের সরকারের ঋণগ্রহণ হয়েছে অনেক বেশি, ফলে প্রকল্প অব্যবস্থাপনা, অপ্রয়োজনীয় ব্যয় হ্রাস এসব ইস্যু অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। আর মুদ্রাস্ফীতি নিয়ে এত হৈ হুল্লোড় করার কিছু নেই। বেশি গ্রোথ যখন হয় তখন মূল্যস্ফীতি একটু বেশি থাকে। এখন যে মুদ্রা সংকোচন নীতিতে চলছে তা ঠিক পথেই চলছে। আমি আশাবাদী আগামী দুই-তিন মাসের মধ্যেই আমরা আইএমএফ-এর থেকে বাজেট সহায়তা পাব যেসব পদক্ষেপ আমরা বাস্তবোচিতভাবে নিচ্ছি সেই সুবাদে। এবং তখন বৈদেশিক মুদ্রার মজুদ পরিস্থিতির ওপর চাপও অনেকটা কমে আসবে। তবে মুদ্রাস্ফীতির সঙ্গে রাজস্বনীতির সমন্বয় না থাকলে মুদ্রা সংকোচন নীতি সাফল্যের সঙ্গে প্রয়োগ করা যাবে না, যতটা প্রয়োজন সেভাবে।

সাপ্তাহিক : আপনি বলছেন বিদ্যুৎ ক্ষেত্রে ভর্তুকি পুরোপুরি উঠিয়ে নিতে। কিন্তু স্বাভাবিক দামের চেয়ে বেশি মূল্যে বিদ্যুৎ উৎপাদন করে ভর্তুকি তুলে দেয়াটা কি যুক্তিসঙ্গত?

বিনায়ক সেন : এটা ঠিক যে ভর্তুকি পুরোপুরি উঠিয়ে দিলে প্রধানত এর ব্যবহারকারীরা একটু চাপে পড়বে। কিন্তু ভর্তুকি দিয়ে অর্থনীতিকে যদি আরো বেশি সামষ্টিক অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তার দিকে যাই তাহলে এর জন্য সবাই ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। যেমন ভর্তুকি দেয়াতে যারা বিদ্যুৎ ব্যবহার করেন তারা উপকৃত হচ্ছেন। কিন্তু সরকার তো শুধু তাদের নয়। ফলে ভর্তুকির ভার বহন করছেন বিদ্যুৎ যারা ব্যবহার করেন না তারাও। সে জন্যই আমি বলছি মন্দার বছরে অর্থনীতির চাপটাকে সবাই শেয়ার করে নিলে উত্তরণ সহজ হয়। একইসঙ্গে আমি আগে বলেছি যে, কাটছাঁটের বছরেও যেন কৃষি, গ্রামীণ অবকাঠামো, শিক্ষা, স্বাস্থ্য এবং সামাজিক নিরাপত্তামূলক কর্মসূচিতে যাতে কাটছাঁট না করা হয়। এখন প্রবৃদ্ধিকে কিছুটা কমিয়ে এনে হলেও সামষ্টিক অর্থনীতিতে স্থিতিশীলতা আনা জরুরি। সেখানে বেহিসেবিভাবে চলার কোনো সুযোগ নেই। আমাদের অর্থনীতি সেই চাপ সামলাতে পারবে না। এই বাস্তবতা সবাইকে বুঝতে হবে। এ নিয়ে রাজনীতি করার সুযোগ নেই।

আরেকটা বিষয় হচ্ছে, মুদ্রাস্ফীতি যেমন বাড়ছে মানুষের ন্যূনতম আয়ও কিন্তু বাড়ছে। আগে মুদ্রাস্ফীতির সঙ্গে কৃষি মজুরির সমন্বয় হতে ৩-৪ বছর লাগত। এখন সেটা ১-২ বছরের মধ্যে সমন্বয় হয়। অর্থাৎ দ্রুত সমন্বয় হয়। যেমন পণ্যের দাম বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে রিকশাওয়ালারা তাদের ভাড়া বাড়িয়ে দেন। কৃষি শ্রমিকরা তাদের দৈনিক মজুরি বাড়িয়ে দেয়। এখন কৃষি মজুরদের দৈনিক মজুরির রেট ২০০-৩০০ টাকা। এতে করে এখন ৫-৭ কেজি চাল হয়। ১৯৮৩-৮৪ সালে ক্ষেতমজুর সমিতি আড়াই সের চালকে ন্যূনতম মজুরি করার কথা ভেবেছিল। ফলে দাম যতই বাড়–ক মানুষ সেটাতে মোটামুটি মানিয়ে নিতে পারছে। এখন সঞ্চয় বিনিয়োগের শক্ত ভিত্তিতে আমরা এমন এক অর্থনীতিতে আছি যেখানে শুধু মুদ্রাস্ফীতির কারণে ভেঙে পড়ব না। তাই সামষ্টিক অর্থনীতিতে স্থিতিশীলতা ফিরিয়ে আনার ক্ষেত্রে বর্তমান সময়ের বড় চ্যালেঞ্জ হলো ভর্তুকি কত কমিয়ে আনতে পারে সরকার।

সাপ্তাহিক : ব্যাংকিং খাতের ক্ষেত্রে গত বছরটা কেমন গেল?

বিনায়ক সেন : এটা একটা ভালো প্রশ্ন। ব্যাংকিং একটা অজানা খাতে পরিণত হয়েছে। ’৮০ দশকে ব্যাংকিং সেক্টরে বড় আলোচনা ছিল এই খাতের টাকা যাচ্ছে কোথায়? এই লুটেরারা কারা? ’৯০ এর দশকে এটা কিছুটা কমে এসেছে। তবে বেসরকারি ব্যাংক উদ্যোক্তা পরিচালকদের নিয়ে কথা উঠেছে। কিন্তু ২০০০ এর দশকে কারা কি করছে তার কোনো সঠিক হিসাব পাওয়া যাচ্ছে না। এমনকি আমি যতটুকু অনুমান করতে পারি গত এক দশকে আর্থিক খাত নিয়ে যতগুলো সংবাদ শিরোনাম হয়েছে তার বেশিরভাগই হয়েছে মুদ্রা ব্যবস্থাপনা, রাজস্ব ব্যবস্থাপনা বা বৈদেশিক ঋণ ব্যবস্থাপনা নিয়ে। ব্যাংকিং খাতের বিষয়টি তেমন আলোচনায় আসেনি। এই প্রাইভেট সেক্টরের বৃহৎ ঋণের প্রবাহ এটা গেছে তাদের কাছে? এমনকি সরকারি ঋণের ক্ষেত্রেও ওঠানামাটা অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। তলিয়ে দেখার বিষয়।

আমার ধারণা মন্দা ঋণকে যেভাবে কমিয়ে দেখানো হচ্ছে বিষয়টা সেরকম নয়। মনে হচ্ছে ক্যাশ রিকভারি নয়, মূলত রিশিডিউলিং ও মন্দ ঋণ মওকুফ (রাইট অফ) করে মন্দ ঋণকে কমিয়ে দেখানো হচ্ছে। সরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোতে রাজনৈতিক নিয়োগ এবং তাদের সম্পর্কে যেসব খবর শোনা যায় তাতে এই সন্দেহটা বাড়ে। তবে আশির দশকের তুলনায় এখন একটু পার্থক্য আছে। যেমন আগে বড় ধরনের ঋণ নিয়ে সেগুলো দিয়ে গাড়ি-বাড়ি, ভোগ বিলাসিতায় ব্যবহার করে ঋণটাকে প্রথমেই মন্দা বানিয়ে ফেলা হতো। এখনকার সময়ে ঋণগ্রহীতারা কিছু ক্ষেত্রে উদ্যোগ নিচ্ছে। কেউ গার্মেন্টস বা রপ্তানিমুখী ব্যবসা করছে কেউ দেশের ভেতরের অর্থনীতিতেও টাকাটা কাজে লাগাচ্ছে, তারপরও এর ওপর যদি নজরদারি থাকে তাহলে আরো উন্নতি হবে সন্দেহ নেই।
সাপ্তাহিক : আর ব্যাংকগুলো যে শেয়ারবাজারে গেল…

বিনায়ক সেন : শুরু থেকেই এই প্রক্রিয়ার বিরোধী ছিলাম আমি। শেয়ার মার্কেট তার নিজস্ব গতিতে চলবে। সেখানে ব্যাংকের মতো বৃহৎ পুঁজির প্রতিষ্ঠান ঢুকলে বাজার আরো তেজী হবে। এতে সাধারণ বিনিয়োগকারীরা আকৃষ্ট হয়ে ভুল সিগনালে হুমড়ি খেয়ে পড়বে। হয়েছেও তাই। আরেকটা হলো কর মওকুফ করা। ব্যাংকে এফডিআর করলেও আমাকে কর দিতে হয়। অথচ শেয়ার মার্কেটের বড় বড় পুঁজির লোকেরা কোনো কর দেবে না এটা কিভাবে হয়? ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের ক্ষেত্রে কর অব্যাহতি হতে পারে। আমি বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরকে জিজ্ঞেস করেছিলাম এটা কিভাবে হলো। তিনি  বললেন, কিভাবে কিভাবে জানি এটা হয়ে গেছে।

তারপর আসুন সঙ্কট উত্তরণে কমিটি গঠন বিষয়ে। তারাও পুঁজিবাজারে ব্যাংককে জড়িত করে রাখল এবং পুঁজিবাজারে আয়কৃত অর্থ করমুক্ত রাখল, উপরন্তু কালো টাকা বিনিয়োগের সুযোগও রাখা হলো। তাহলে আমার প্রশ্ন হচ্ছে, যে বিশৃঙ্খলাটা পুঁজিবাজারে তৈরি হয়েছে সেখান থেকে তারা কি শিক্ষা গ্রহণ করল? আবার বিভিন্ন ধরনের ফান্ড তৈরি করে বাজার দাঁড়ানোর ব্যবস্থা করার চেষ্টা করা হচ্ছে। এগুলো কোনো দীর্ঘমেয়াদি ফল দেবে না। মানুষের আস্থাই হলো এই বাজারের বড় মূলধন। আমার মূল কথা হলো, ব্যাংক খাতকে পুঁজিবাজারের থেকে যতটা সম্ভব দূরে রাখতে হবেÑ বিশেষত, সেকেন্ডারি মার্কেটে তারা বিনিয়োগ করতে পারবে না। আরেকবার পুঁজিবাজারে ধস নামলে সমগ্র ব্যাংকিং খাত ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

সাপ্তাহিক : ইব্রাহীম খালেদের তৈরি প্রতিবেদন কতটুকু আমলে নেয়া হয়েছে?

বিনায়ক সেন : ওঁর প্রতিবেদনে যাদের নাম এসেছে তাদেরই কেউ কেউ মার্কেট পুনর্গঠনে দায়িত্ব পেয়েছেন। এ থেকেই বোঝা যায় সরকার কতটুকু বিষয়টা আমলে নিয়েছেন। তারপরও প্রধানমন্ত্রীর মতো সর্বোচ্চ ব্যক্তিকে যেখানে মীমাংসা করার জন্য জড়িত করা হলো সেখানেও প্রধান দুটি ভুল শোধরানো হয়নি। তার একটা হলো ব্যাংক খাতকে জড়িত রাখা হলো এবং কর মওকুফের সঙ্গে কালো টাকাও ছাড় পেল।

সাপ্তাহিক : শেয়ারবাজারের অব্যবস্থাপনাকে বর্তমান সরকারের অন্যতম ব্যর্থতা বলে অনেকের অভিযোগ…

বিনায়ক সেন : শুধু শেয়ারবাজার না। আমি আমার একান্ত ব্যক্তিগত উপলব্ধি থেকে বর্তমান সরকারের কয়েকটি ভুলকে উপলব্ধি করি। প্রথমত, পুঁজিবাজারের অস্থিতিশীলতা তৈরির নেপথ্য কারিগররা ধরাছোঁয়ার বাইরে। দ্বিতীয়ত ড. ইউনূসের মতো ব্যক্তির সঙ্গে অহেতুক বিতর্কে জড়ানো যেটা আন্তর্জাতিকভাবে প্রভাব রাখছে। তৃতীয়ত, পদ্মা সেতু নিয়ে বিশ্বব্যাংক যেভাবে তাদের আপত্তি জানিয়েছে (সাধারণত তারা প্রকাশ্যে এ নিয়ে বলার চেয়ে আগে সরকারকে গোপনে জানায়)। তারপরও সরকার ঐ মন্ত্রীকে সময়মতো সরায়নি এবং আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো বিরোধী দলের নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে মামলা সংক্রান্ত ঝামেলা। এসব মামলার বিষয় দুদক দেখবে। এগুলো নিয়ে হৈ চৈ করা সরকারের কাজ নয়। বিরোধী দলের বিরুদ্ধে অন্যায় যুদ্ধ করার চেয়ে জনগণের মন জয়ের চেষ্টা করা উচিত ছিল। এখনও সময় আছে সতর্ক হওয়ার। রাজনৈতিক শান্তি না থাকলে অর্থনৈতিক শান্তি ও স্থিতিশীলতা রক্ষা করা যাবে না। অন্যদিকে, সামনের নির্বাচন কি তত্ত্বাবধায়ক সরকারে হবে নাকি অ-তত্ত্বাবধায়কে হবে সেটা নিয়ে বিতণ্ডায় থাকা আমাদের বর্তমান রাজনৈতিক-অর্থনৈতিক আলোচনার বিষয় হওয়া উচিত নয়। অথচ এসব বিতর্কে সরকার তার যথেষ্ট শক্তি ক্ষয় করছে। বিরোধী দলও এই অভিযোগের বাইরে নয়। কিন্তু এসব সমস্যাকে আমি সরকারের স্বেচ্ছাকৃত ভুল বলব। যেগুলো থেকে দূরে থাকা সম্ভব বলে আমি মনে করি।

সাপ্তাহিক : পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন একদিকে অনেক টাকা লুটেরা গোষ্ঠী নিয়ে গেল। অন্যদিকে সরকার বিভিন্ন খাতের টাকা ফান্ড করে বাজারকে তেজি করার চেষ্টা করছে। যেখানে দোষীদের বিচার তো হয়ইনি উপরন্তু আরেক কালো টাকার গোষ্ঠীকে অবাধে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। বিষয়টা আপনি কিভাবে দেখেন?

বিনায়ক সেন : কালো টাকা বিনিয়োগের মাধ্যমে যে এই সমস্যার সমাধান হবে না সেটা অনেক অর্থনীতিবিদ ইতোমধ্যে বলেছেন। এটা নিয়ে আর ব্যাখ্যা করার দরকার নেই বলে আমার মনে হয়। আমার কথা হচ্ছে আমাদের এখানে ন্যূনতম সুশাসন নিশ্চিত করার মানসিকতা না থাকায় কালো-সাদা টাকার মধ্যে তেমন কোনো ফারাক নেই। যে কারণে বলা যায় কালো টাকা অলস পড়ে নেই। কোনো না কোনো খাতে সেটা ব্যবহার হচ্ছে। আমি মনে করি ফাইনান্সিয়াল সেক্টরের মধ্যে ক্যাপিটাল মার্কেট একটি অংশ মাত্র। পুঁজিবাজারের মাধ্যমে যারা তরুণ সমাজের জন্য কর্মসংস্থান করতে চেয়েছিলেন তারা ভুল করেছেন। তাছাড়া আমাদের আঞ্চলিক অর্থনৈতিক শক্তিগুলোর দিকে তাকিয়ে দেখুন তারা পুঁজিবাজারের মাধ্যমে কিন্তু উন্নয়ন ত্বরান্বিত করেনি যেমন, পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর ক্ষেত্রে এটা প্রযোজ্য। তাদের উন্নয়ন হয়েছে মূলত সরাসরি বৈদেশিক বিনিয়োগের মাধ্যমে এবং ব্যাংক খাতের সঠিক ব্যবহারের মধ্য দিয়ে। এটা বাংলাদেশের জন্যও প্রযোজ্য।

পুঁজিবাজার নিয়ে আমাদের ঐতিহাসিক দুর্ভাগ্য আছে। ১৮৪৭ সালে প্রথম বাঙালি শিল্প উদ্যোক্তাদের বড় ধাক্কা দেয় শেয়ার মার্কেট। দ্বারকানাথ ঠাকুরদের সব কোম্পানি ধ্বংস হয় পুঁজিবাজারের অভাবনীয় দরপতনের কারণে। পুঁজিবাজারের আরেকটি বড় পতন আমাদের ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করে ১৯৩০ সালের মহামন্দার সময়। বর্তমান সময়েও আমাদের পুঁজিবাজার অর্থনীতিতে তেমন কোনো অবদান রাখেনি। আমাদের উন্নয়ন মূল অবদান রেখেছে সরকারি বিনিয়োগ, ব্যাংকিং খাত এবং আমাদের রপ্তানি।

তবে পুঁজিবাজারে আমাদের বৃহৎ কিছু প্রতিষ্ঠানকে জড়িত করতে পারলে ইতিবাচক ফল হতো। যেমন ব্র্যাকের মতো প্রতিষ্ঠানের সম্পদ কম-বেশি বেক্সিমকোর সমান। বা কিছু বৃহৎ গার্মেন্টস ফ্যাক্টরি আছে যেগুলো সারা বছরই ভালো উৎপাদনে থাকে তাদেরকে যদি পুঁজিবাজারে সম্পৃক্ত করা যায় এবং এসব প্রতিষ্ঠানের অন্তত এক-তৃতীয়াংশ প্রাইমারি শেয়ার যদি ক্ষুদ্রঋণের পরিবার বা শ্রমিক পরিবারের জন্য বরাদ্দ করা হতো তাহলে পুঁজিবাজারে নতুন প্রাইমারি শেয়ার যেমন আসত, তেমনি এসব প্রতিষ্ঠানের গরিব সদস্যরাও ডিভিডেন্ড আয় থেকে বাড়তি উপার্জন করতে সক্ষম হতেন। ফলে কর্মীদের মধ্যে দায়িত্বশীলতা বেড়ে কাজের গতিকে প্রভাবিত করত। এগুলোকে আমি প্রাইমারি মার্কেটে যুক্ত থাকার বিষয়ে বলছি। একই সঙ্গে পুঁজিবাজারে কিছু সতেজ রক্ত প্রবাহিত হতো যা বিনিয়োগকারীদের আকৃষ্ট করত, আস্থা বাড়ত।

সাপ্তাহিক :  কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ভূমিকাকে কিভাবে দেখছেন?

বিনায়ক সেন : আমাদের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের স্বায়ত্তশাসন নেই। তাই কেন্দ্রীয় ব্যাংককে শুধু দোষারোপ করলে চলবে না। পৃথিবীর যেসব অর্থনীতি শক্তিশালী হওয়ার পথে বা এখন শক্তিশালী সেসব দেশে কেন্দ্রীয় ব্যাংক নিজেদের মতো করে চলে। কিন্তু আমাদের সরকারের একটা ব্যাংকিং বিভাগ আছে। সেখানে নিজেদের দলীয় অনেক ক্ষেত্রে অযোগ্য লোকদের নিয়োগ দিয়ে সব নিজেদের মতো পরিচালনা করতে চায়। দলীয় লোক নিয়োগ দিতেও আপত্তি থাকত না যদি তারা সংশ্লিষ্ট খাতের যোগ্য ব্যক্তি হতেন। তবে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের দুটি বিষয়কে ইতিবাচক উল্লেখ করতেই হবে তার একটি হলো জোর করে টাকার মান ধরে রাখার চেষ্টা তারা করেনি। দ্বিতীয়ত পরিস্থিতি অনুযায়ী মুদ্রা সংকোচন নীতি নিয়ে চলেছে। এখন সরকার যদি তার ব্যয়ে কোনো কাটছাঁট না করে আগের মতোই চলতে চায়, ব্যাংক ঋণ নিতে থাকে তাহলে তো সমস্যা হবেই। আমাদের মুদ্রানীতি ও রাজস্বনীতির মাঝে কোনো সমন্বয় নেই।

সাপ্তাহিক : আমাদের সরকারি ব্যয় কি প্রয়োজনের তুলনায় বেশি?

বিনায়ক সেন : সাধারণত ২০-২১ শতাংশ সরকারি ব্যয় থাকে। সে তুলনায় আমাদের কমই হয়। কিন্তু যেহেতু আমরা একটু চাপে আছি সেই ক্ষেত্রে এদিক-সেদিক কাটছাঁটের চিন্তা করতে হবে মন্দা বছরের তাড়নায়। তবে গ্রাম উন্নয়ন, কৃষি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও সামাজিক নিরাপত্তাবেষ্টনী সংশ্লিষ্ট বিষয়গুলোকে যথাসম্ভব রক্ষা করতে হবে। কারণ এগুলো সাধারণ মানুষের সঞ্চয়ে অবদান রাখে।

সাপ্তাহিক : আপনি বলছেন সামাজিক নিরাপত্তামূলক কর্মসূচি ঠিক রাখতে, অন্যদিকে ব্যাংক ঋণ নেয়া বন্ধ করতে। তাহলে সরকার টাকা পাবে কোথায়?

বিনায়ক সেন : সরকারের হাতে যেসব মেগা প্রজেক্ট আছে সেগুলোকে আপাতত বন্ধ রেখে, যতটা সম্ভব সরকারি ব্যয় কমিয়ে এবং ভর্তুকি উঠিয়ে দিয়ে সরকারকে একটা সমন্বয়ের মধ্যে আসতে হবে। এখন ভর্তুকি উঠিয়ে দেয়ার কথা বললেই অনেকেই হৈ চৈ করে ওঠেন। কিন্তু আমি এক মধ্য খামারের কৃষকের সঙ্গে আলাপ করে দেখেছি। তারা বলছে সারের ভর্তুকি উঠিয়ে দিলেও খুব বেশি সমস্যা হবে না। কারণ কৃষক ভালো দাম পাচ্ছেন। এখন পণ্যের দাম বাড়ছে অনেক বেশি অথচ আমাদের ভর্তুকি মানসিকতা কমছে না। এটা ঠিক না। নব্বইয়ের দশকে ধানের দাম তেমন পেত না কৃষক। এখন তো ভালো পাচ্ছে। তাই কৃষিপণ্যের তুলনামূলক উচ্চ দামের স্তরে প্রবেশ করেও আমাদের ভর্তুকি মানসিকতা থাকবে ২০ বছর আগের মতোÑ এটা কিভাবে হয়?

সাপ্তাহিক : সরকারের আয় বাড়ানোর জন্য আর কি করা যেতে পারে?

বিনায়ক সেন : খুব দুঃখের বিষয় হলো আমরা যখন আর্থিক বছর নিয়ে আলোচনা করছি তখন মূল উপজীব্য হচ্ছে রেমিট্যান্স বা বৈদেশিক সাহায্য ইত্যাদি। কিন্তু ইতিবাচক অর্থে মূল আলোচনার বিষয় হওয়া উচিত ছিল রাজস্ব আয় বাড়ানোর ওপর। এর কারণ হচ্ছে কর আদায়ে আমরা পারদর্শী নই। আমেরিকাতে এফবিআই (ফেডারেল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন) প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল কর গোয়েন্দা হিসেবে। আমাদের দেশেও কর সেভাবে আদায় হচ্ছে না। একদিকে মানুষ কর দিতে আগ্রহী না। অন্যদিকে করনীতিতে থাকছে বিশাল ফাঁকির সুযোগ। না হয় আমরা এত পিছিয়ে থাকতাম না। নানান বিষয়ে কমিশন হয় একটা কর কমিশন করে এর আইনসহ সংশ্লিষ্ট দিকগুলো দেখলেই হয়। এটা করা হবে না। বলা হয় দুর্নীতি আমাদের বড় সমস্যা। আমি বলি অত্যন্ত দক্ষ এবং পর্যাপ্ত সংখ্যক কর গোয়েন্দা নিয়োগ করুন। দেখবেন দৃশ্য পাল্টে যাবে। আর শুধু গতানুগতিক পদ্ধতিতে কর আদায় করলে হবে না। আধুনিক অনেক চিন্তা-চেতনা ও পদ্ধতি বিভিন্ন দেশে প্রয়োগ হচ্ছে সেগুলো দেখেও আমাদের জন্য উপযুক্ত একটি পদ্ধতি বেছে নিতে পারি। কর আদায় বাড়িয়ে রাজস্ব আয় বাড়ানো না গেলে বৈদেশিক সাহায্য নির্ভরতা কাটবে না, বা মন্দার বছরে ব্যাংক থেকে ঋণ গ্রহণের প্রবণতা আগামীতেও থেকে যাবে।

সাপ্তাহিক :  দেশে আয় বৈষম্য বাড়ছে বলে অভিযোগ অনেকের…

বিনায়ক সেন : পাকিস্তান আমলে যেমন মুষ্টিমেয় পরিবারের হাতে সম্পদ কুক্ষিগত ছিল আমাদের দেশে তেমনটি তৈরি হয়েছে কিনা সেটা গবেষণার বিষয়। ১৯৮৮ সালে আমি এবং এমএম আকাশ একটি কাজ করেছিলাম। সেখানে ৩৬টি পরিবারের বিষয় এসেছিল। এখন এ বিষয়ে কোনো কাজ হয়েছে কিনা আমার জানা নেই। তবে যে পরিমাণ শিল্প প্রতিষ্ঠান, ব্যাংক-বীমা হয়েছে তাতে এই সংখ্যা বেড়েছে অনেক তা নিঃসন্দেহে বলা যায়।

তবে একই সঙ্গে সাধারণ মানুষের আয় বেড়ে জীবনযাত্রাও পরিবর্তিত হয়েছে। বিশেষ করে অতি উচ্চবিত্ত এবং অতি দরিদ্রদের আয় বেড়েছে। বেকায়দায় আছে মধ্যবিত্ত। মধ্যবিত্তদের আবার দুটি শ্রেণী মনে করি আমি। একটা উচ্চমধ্যবিত্ত, আরেকটি হলো মধ্য মধ্যবিত্ত। মধ্য মধ্যবিত্ত তুলনামূলকভাবে সমস্যায়। জিনিসপত্রের দাম ওঠানামা করলে উচ্চবিত্তের জন্য কোনো সমস্যা না। উচ্চমধ্যবিত্তও তেমন কোনো প্রভাবিত হয় না। কিন্তু মধ্য-মধ্যবিত্তের আয় নির্দিষ্ট হওয়াতে সমস্যায় পড়ে। অন্যদিকে মজুরি শ্রমনির্ভর গরিব শ্রেণীর অনেকেই মূল্যবৃদ্ধির সঙ্গে তাদের মজুরির সামঞ্জস্য করতে পারে খুব দ্রুত, তাই তারাও একটা ব্যালেন্সের মধ্যে থাকতে পারে। সামনের দিনে দারিদ্র্য বিমোচনকে বড় চ্যালেঞ্জ মনে করা হয়। কিন্তু আমার মতে বড় চ্যালেঞ্জ হলো কর্মসংস্থান। কারণ আমাদের দেশের বেশিরভাগ মানুষ বয়সে তরুণ, তারা পর্যায়ক্রমে চাকরির বাজারে প্রবেশ করবে। সেখানে তারা প্রথমেই বড় ধরনের বৈষম্যের শিকার হবে শিক্ষার দিক দিয়ে। যেমনটা বর্তমানে হচ্ছে শ্রীলঙ্কায়। অর্থাৎ কে কোন প্রতিষ্ঠান থেকে পড়াশোনা করেছেন সেটা একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হিসেবে ধরা হবে। বাংলা মাধ্যমে পড়েছে  না ইংরেজি  মাধ্যমে পড়েছে। এখন একজন মধ্যবিত্তের সাধ্য নেই তার সন্তানকে ইংরেজি মাধ্যমে পড়াবে। তাই এক দেশে অনেক ধারায় শিক্ষা অর্জন হচ্ছে। যা বৈষম্যের সঙ্গে অদক্ষতা তৈরি করে। এই বিষয়টা দেখতে হবে। আরেকটি হলো কারিগরি শিক্ষা, উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের মাধ্যমে শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে অথবা বৃত্তি দিয়ে মেয়েদের পড়িয়ে বসিয়ে রাখলে হবে না। এসব করে আমরা এমডিজি অর্জন করতে পারব, কিন্তু সেই সঙ্গে তাদের কর্মসংস্থানের ব্যাপারেও চিন্তা করতে হবে। পড়াশোনা করে তারা শুধু ভালো মা হবে নাকি উৎপাদনশীল খাতে কাজে লাগবে এটা দেখতে হবে। কারণ যে মেয়েটি শিক্ষার্জন করেছে তার মনমানসিকতা পরিবর্তন হয়েছে নিশ্চয়ই। তার মতের প্রাধান্য দিতে হবে। না হয় অসন্তোষ বাড়বে। ইনক্লুসিভ গ্রোথ-এর জন্য মহিলারা যাতে শ্রমবাজারে আরো বর্ধিত আকারে অংশ নিতে পারেন সেদিকে নজর রাখা জরুরি।

সাপ্তাহিক : গণতন্ত্র, সমাজতন্ত্রে অসন্তোষ দানা বাঁধছে। এই দুইয়ের মিশ্রণও খুব ফলপ্রসূ হচ্ছে না বলে বিশেষজ্ঞদের অভিমত। এসবের বাইরে নতুন কিছু চিন্তার জায়গা আছে কি?

বিনায়ক সেন : বর্তমান বিশ্বে অনেক ধরনের গণতন্ত্র আছে। আবার নানান ধরনের সমাজতন্ত্রও আছে। এগুলো মানুষকে পরিতৃপ্তি না দিলেও নতুন পথ না থাকায় মন্দের ভালোর মধ্যে থাকছে। তবে মানুষের মাঝে যে আকাক্সক্ষা দেখা যায় সেটা হলো আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে শাসন তাদের পছন্দ। গণতন্ত্র মানে অবাধ নির্বাচন শুধু নয়, এটি গণতন্ত্রের সংকীর্ণ সংজ্ঞা। গণতন্ত্রের জন্য প্রয়োজন সমাজের সর্বস্তরে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে শাসন পরিচালনা করা। এটাই গণতন্ত্রের আধুনিকতম ধারণা। একদিন ভোট দিলেই মানুষের কাজ শেষ বিষয়টা এরকম নয়। যেমন এখন বলা হয় আমেরিকায় গণতন্ত্র থাকলেও অর্থনৈতিক গণতন্ত্র নেই। অন্যদিকে চীনে গণতন্ত্র না থাকলেও অর্থনৈতিক গণতন্ত্র আছে। এখন কথা হচ্ছে দুটি প্রক্রিয়াতেই মানুষ আস্থা রাখতে পারছে না। এ জন্য আমরা নিজেও এটা নিয়ে লিখেছি প্রতিচিন্তা নামক একটা ত্রৈমাসিক পত্রিকায়। এই দুটি ধারার বাইরে তৃতীয় আরেকটি ধারাতে আমরা প্রচেষ্টা চালাতে পারি। বর্তমান বিশ্বে চিলি, ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা, বলিভিয়া, উরুগুয়ে ইত্যাদি ল্যাটিন আমেরিকার দেশগুলো আমেরিকার প্রতি স্বতন্ত্র দৃষ্টিভঙ্গি রেখে, আইএমএফের সহযোগিতা না নিয়েও অর্থনৈতিকভাবে ভালো করছে। জনকল্যাণমুখী উন্নয়নের পথ বেছে নিয়েছে। সামরিক বাহিনীর শাসনকে সাংবিধানিকভাবে প্রত্যাখান করেছে। আমি বলছি না তাদেরটাই শেষ পথ কিন্তু তারা এগুলো দিয়ে ভালো করছেন। তেমনি আমরা জনঅধিকারের ভাষায় নতুন পথে চলতে পারি কিনা সেই চেষ্টায় যাওয়া উচিত। গরিবরা শুধু কোনোমতে বেঁচে থাকবে আর ধনীরা আরো ধনী হতে থাকবে এটা হওয়া উচিত না।

সাপ্তাহিক : অতি ধনীদের জীবযাপন নিয়ে আপনার পর্যবেক্ষণ কি?

বিনায়ক সেন : সম্প্রতি ভারতের ধনীদের বিষয়ে অরুন্ধতী রায় তাঁর ব্রোকেন রিপাবলিক বইতে লিখেছেন যে ভারতের অতি ধনীরা সমাজ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে ভিন্ন জগতের বাসিন্দা হয়ে যাচ্ছেন। তারা সামাজিক খবর তো রাখেনই না, সেই ভাষাও বুঝতে অক্ষম হয়ে পড়ছেন। তেমনিভাবে আমাদের বাংলাদেশের অতি উচ্চবিত্তদেরও এই অবস্থা দাঁড়িয়েছে। ব্যক্তিগত একটা উদাহরণ দিই। কিছুদিন আগে আমাদের দুজন বন্ধু দেশের বাইরে থেকে দীর্ঘদিন পর আসছেন। সে উপলক্ষে কয়েকজন মিলে শতাধিক লোকের আয়োজন করলেন ঢাকা ক্লাবে। আমাকে দাওয়াত করল। কার্ডে ড্রেস কোড নিয়েও কিছু নির্দেশনা আছে। আমি বললাম যে, এই অনুষ্ঠানে গিয়ে তাদের স্বাগত জানানোর কাজটা আমি করতে পারব না। তারা আমার বন্ধুÑ তাদের সঙ্গে কথা হবে পারিবারিক পরিবেশে। আর যদি সবাই মিলে বিশেষ আয়োজন বা গেট টুগেদারের আয়োজন করি তাহলে অন্য জায়গায় করা যায়। ঢাকা ক্লাবের মতো এত ব্যয়বহুল জায়গায় কেন? এই যে আমাদের শ্রেণী উত্তরণ এবং চরিত্র পরিবর্তন তা সত্যিই অভাবনীয়।

সাপ্তাহিক : ভারতের সঙ্গে ট্রানজিট প্রসঙ্গে আপনার মত কি?

বিনায়ক সেন : ভারতের সঙ্গে আমাদের ৩টি কাঁটাতারের বাধা রয়েছে। একটি হচ্ছে ভৌগোলিক কাঁটাতারের বেড়া- যা দিয়ে আমাদের দেশের সীমান্তের চারপাশে বেড়া তৈরি করে আমাদের ভূখ-কে সন্ত্রাসী ভূখ- মনে করে অভিবাসীদের যাওয়া-আসা বন্ধ করতে চেয়েছে। অর্থাৎ ভৌগোলিক কাঁটাতার প্রমাণ করে যে তারা আমাদেরকে আস্থায় নেয়নি। দ্বিতীয় কাঁটাতারটি হচ্ছে মানসিক। আমাদের এখানে অবাধে ভারতীয় চ্যানেল দেখানো হচ্ছে, অথচ আমাদের কোনো চ্যানেল সে দেশে প্রদর্শিত হয় না। আমাদের উন্নতি, আমাদের নাটক, আমাদের গান, আমাদের সমাজ নিয়ে জানবার কোনো সম্ভাবনাই নেই সাধারণ ভারতবাসীর। এই কাঁটাতারটি আরো মর্মান্তিক। তৃতীয় কাঁটাতারটি হচ্ছে বিনিয়োগের কাঁটাতার। আমাদের দেশে বিনিয়োগ বাড়িয়ে দুই দেশের মধ্যকার দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্যে যে ভারসাম্যহীনতা অনেক দিন ধরে চলছে তা কমিয়ে আনার সুযোগ ছিল। কিন্তু সেভাবে সেটা হচ্ছে না। বরং টিপাইমুখ বাঁধ, তিস্তা নিয়ে প্রহসনÑ এসবের মধ্য দিয়ে আমাদের স্থানীয় বিনিয়োগের ভবিষ্যৎ সম্ভাবনাকে নষ্ট করা হচ্ছে। আমি মনে করি, এই তিনটি কাঁটাতার ভৌগোলিক, মানসিক ও বিনিয়োগের কাঁটাতার দূর না হওয়া পর্যন্ত ট্রানজিট সুবিধে তড়িঘড়ি করে দেয়া উচিত হবে না। কাঁটাতার উঠিয়ে নিলে ট্রানজিট দেয়ার কথা ভাবা যেতে পারে। কাটাঁতার উঠিয়ে নেয়ার বিনিময়ে ট্রানজিট এই হচ্ছে আমার প্রস্তাব।

ছবি : কাজী তাইফুর

Binayak sees no step to cope with prices

Dhaka, June 10: Terming the budget for the next fiscal realistic renowned economist Dr Binayak Sen felt that though there are concrete measures in the budget for internal revenue mobilization, mobilising external resources would be a major challenge for the government. He also said many new taxes were imposed to achieve the internal revenue target. Talking to The Independent on Friday Dr Sen also noted that the budget lacked emphasis on decentralization of the public expenditure which he felt was crucial to address the challenges of budget implementation.

‘At least 10 per cent of the budget should be devolved to the local government” he said.
Focusing on the revenue mobilization measures, he said, many new taxes have been imposed to achieve the internal revenue target.

“Once upon a time the revenue mobilization capacity of the country was poor but the government has made significant development in this sector,” Dr. Sen told The Independent. He felt that though the role of foreign aid was going down with the passage of time, concessional foreign loans played a crucial role in the economy during periods of uncertainty.

In this connection he mentioned that during the fiscal uncertainty in 2007-08, the then government had managed to get concessional foreign loans from the World Bank which helped it to face the crisis.

“FDI is a major source of external resources but one cannot attract FDI overnight as it requires a long time strategy. The governments needs to concentrate on it,” he added.

He also felt that the budget lacked guidelines to cope with the rising prices of commodities. The government needs to formulate a strategy to absorb the shock of the high prices of food, oil and instability in the foreign exchange sector.

Dr. Sen, however, observed that lack of preparedness resulted in the recent crash in the capital market. In this connection he mentioned that former finance minister late Shah ASMA Kibria had an advisory council which used to advise him on economic management on a regular basis but the present government does not have any such council.

‘The government should use the expertise of the economists on a regular basis through such a council,” he suggested adding that such institutional mechanism helped a lot during crisis periods.

Sen proposed an alternative outlook to expedite project implementation by prioritizing seven to eight sectors identifying a few projects under these sectors instead of the present culture of identifying over 800 projects in the budget and then facing non-implementation over 40 percent of these projects.

He further offered a formula to implement at a faster pace by decentralizing the annual development project and allocate Tk 1 crore performance incentive to the newly-elected union parishads which perform well in revenue generation and project implementation.

He proposed that the government should introduce health insurance at the mass level like in neighbouring India where the government contributes the funding but implements it by private companies.

“The government could solve many of the acute problems like nutrition and family planning if it set cross conditionality for the people who are already served by the government under the social safety net,” he suggested.

Explaining his satisfaction over the fast pace in reducing poverty he said, ‘This is our economic strength. If the global shocks like high commodity and high fuel prices, low external assistance were not there, the GDP growth rate could be over 7 to 8 per cent in the current fiscal year.”