বঙ্গবন্ধুর গণতান্ত্রিক সমাজতন্ত্র: বাহাত্তরের সংবিধান ও সমতামুখী সমাজের আকাঙ্ক্ষা

পর্ব ::১০০
[পূর্বে প্রকাশিতের পর]

মুসলিম লীগের হাশিম-সোহরাওয়ার্দী গ্রুপের সাথেই তিনি বেশি ঘনিষ্ঠ ছিলেন। শেষ পর্যন্ত এ-ধরনের প্রস্তাবে নেহরু-প্যাটেলের কংগ্রেস এবং জিন্নাহর নেতৃত্বাধীন মুসলিম লীগের মূল অংশ রাজি না হওয়ায় এই ‘স্বাধীন সমাজতান্ত্রিক বাংলা প্রজাতন্ত্র’ প্রকল্পটি আর এগোতে পারেনি। না পারলেও কথাগুলো মুজিবের মনে গেঁথে গিয়েছিল। খোন্দকার মোহাম্মদ ইলিয়াস তার ‘প্রসঙ্গ শেখ মুজিব’ বইতে এ নিয়ে লিখেছেন এভাবে:
‘শেখ মুজিবের জীবনদর্শন ও অভিধানে সাহসিকতা দুঃসাহস প্রেম-প্রীতি-ভালবাসা রাগ-বিরাগ-অনুরাগ বাৎসল্য-অনুভূতি-সহানুভূতি প্রভৃতি অসংখ্য শব্দের ভিড় চোখে পড়ে। শুধু চোখে পড়ে না একটি শব্দ-নৈরাশ্য। আশ্চর্যের বিষয় সেদিনও তিনি নিরাশ হলেন না। বাংলা খণ্ডিত হবার কিছুদিন পর তিনি আমাদেরকে ডাকলেন কলকাতার এক সভায়। স্থান সিরাজউদ্দৌলা হোস্টেল, পার্ক রোড। সভায় যোগদান করেন কাজী মোহাম্মদ ইদ্‌রিস, শহীদুল্লা কায়সার, কে.জি. মুস্তাফা, মোয়াজ্জেম আহমদ চৌধুরী, নুরুল আলম, শরফুদ্দিন আহমদ, আখলাকুর রহমান প্রমুখ সাংবাদিক ও যুব মুসলিম লীগ কর্মী। তাঁদের কেউ কেউ ভবিষ্যৎ করণীয় সম্পর্কে সভার আলোচনায়ও অংশ নিয়েছিলেন।
শেখ মুজিবের কথাগুলো আজও বিশেষভাবে যেন কানে বাজে…শোষকদের হাতে আমরা পরাজিত হয়েছি। কিন্তু এ পরাজয় সাময়িক। চলুন পাকিস্তানে যাই, শোষিত-নিপীড়িত মানুষকে সংগঠিত করি। পূর্ব বাংলায় কৃষক, শ্রমিক ও মেহনতী মানুষকে সংগঠিত করতে হবে। শোষকদের পরাজিত করতে শোষিত জনগোষ্ঠী নিজেরাই যথেষ্ট। তারাই প্রতিষ্ঠা করতে পারবে নিজেদের সরকার, নিজেদের গণতন্ত্র, নিজেদের সমাজব্যবস্থা-শোষণহীন সমাজতান্ত্রিক সমাজ। সেদিন আমার দুঃখী মানুষের মুখে ফুটবে হাসি। সোনার বাংলায় প্রতিষ্ঠিত হবে শোষিতের গণতন্ত্র, শোষিত-নিপীড়িত জনগণের গণতান্ত্রিক সরকার। এই তো আমরা চাই। এই আমাদের স্বপ্ন।’
‘স্বাধীন পূর্ব বাংলা’ ও ‘শোষণহীন সমাজতান্ত্রিক সমাজ’ এই দুটো স্বপ্নই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের মনে জাগ্রত হয়েছিল কালক্রমে। বস্তুত তার মধ্যে ক্রম-বিকাশের একটি সুস্পষ্ট ধারা দেখতে পাওয়া যায়। ঘটনাপ্রবাহের ঘাত-প্রতিঘাতে এবং প্রত্যক্ষ রাজনৈতিক অভিজ্ঞতায় বিবর্তিত হচ্ছিল তার চিন্তা-চেতনা। তার ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ ও ‘আমার দেখা নয়াচীন’ পঞ্চাশের দশকের শুরুতে তার দৃষ্টিভঙ্গিকে প্রকাশ করেছে। তিনি সমাজতান্ত্রিক ও পুঁজিবাদী সিস্টেমের ভালো-মন্দ বিচার করতে শুরু করেছেন খোলা মন নিয়ে। একদিকে সমাজতান্ত্রিক রাষ্ট্র-ব্যবস্থার অর্থনৈতিক সাম্যের দিকে তার দৃষ্টি কেড়েছিল। অন্যদিকে, এই ব্যবস্থায় মতপ্রকাশের অবাধ স্বাধীনতার অভাব ও গণতন্ত্রের সমস্যা এসব তাকে পীড়া দিচ্ছিল। ষাটের দশকের গোড়ার দিকে যখন তিনি কমিউনিস্ট পার্টির তৎকালীন নেতৃবৃন্দের সঙ্গে বৈঠক করছেন, তখনই তিনি পূর্ব বাংলার স্বাধীনতার প্রশ্নে স্থির সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছেন। ষাটের দশকের মাঝামাঝি যখন আওয়ামী লীগের মূল দায়িত্ব তার কাঁধে এসে পড়েছে তখন কর্মসূচির মধ্যে প্রোথিত হয়ে গেছে সমাজতন্ত্রের লক্ষ্য ও আদর্শ। সেই ধারাবাহিকতায় এসেছে ১৯৭০-এর নির্বাচনী মেনিফ্যাস্টোতে সমাজতন্ত্রের কথা। তবে সেই সমাজতন্ত্রের সঙ্গে সোভিয়েত ও চীন দেশের সমাজতন্ত্রকে গুলিয়ে ফেলা উচিত হবে না। সমাজতন্ত্রের পাশাপাশি তিনি ব্যক্তি-উদ্যোগের কথাও বলছেন, গণতন্ত্রের তথা সাধারণ জনগণের গণতান্ত্রিক (নির্বাচনী) অধিকার প্রতিষ্ঠার কথাও বলছেন। ষাটের দশকে যেন প্রতিটি বছরে তার পরিপকস্ফতা বেড়ে যাচ্ছে। তিনি প্রতিটি বছরের ব্যবধানে তার সমসাময়িকদের ছাড়িয়ে যাচ্ছেন। এই ক্রম-পরিণতিবোধ শেখ মুজিবের বৈশিষ্ট্য এবং এর পরম্পরায় এসেছে তার চার মূলনীতি এবং ১৯৭২ সালের সংবিধান।
বঙ্গবন্ধু যে বাংলাদেশের পরিসরে সমাজতন্ত্র গড়া নিয়ে সোভিয়েত-চীনের ‘মডেল’ বা পশ্চিম ইউরোপীয় ‘সোশ্যাল ডেমোক্রেসির’ ছকের বাইরে অন্যকিছু অনুসরণ করবেন এটির আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি মেলে বাহাত্তরের সংবিধান গ্রহণের সময়ে ‘গণতান্ত্রিক কাঠামোর মধ্যে সমাজতন্ত্র’ নির্মাণের স্বকীয় বাচনভঙ্গিতে। এ যেন মার্কসের সঙ্গে স্টুয়ার্ট মিলকে মেলানোর চেষ্টা। অথবা রাসেলের সঙ্গে লেনিনকে মেলানোর তাগিদ। কিন্তু এর অন্যবিধ স্বীকৃতিরও প্রমাণ পাই আমরা বিদেশি অর্থনীতিবিদদের লেখায়। ১৯৭৩ সালে ঢাকায় অনুষ্ঠিত হয় ইন্টারন্যাশনাল ইকোনমিক অ্যাসোসিয়েশনের কনফারেন্স। তার বিষয়বস্তু- ‘সমাজতান্ত্রিক কাঠামোর ভেতরে বাংলাদেশের উন্নয়ন সম্ভাবনা’। ১৯৭৪ সালে এই কনফারেন্সে পঠিত প্রবন্ধগুলো নিয়ে প্রকাশিত হয় স্মরণীয় পুস্তক ‘দ্য ইকোনমিক ডেভেলপমেন্ট অব বাংলাদেশ উইদিন এ সোশ্যালিস্ট ফ্রেমওয়ার্ক’। এর সম্পাদক ছিলেন ই,এ,জি রবিনসন (অস্টিন রবিনসন) ও কীথ গ্রিফিন। অধ্যাপক নুরুল ইসলামের আমন্ত্রণে এই সম্মেলন ঢাকায় অনুষ্ঠিত হয়। এতে পুঁজিবাদী ও সমাজতান্ত্রিক দেশের প্রথিতযশা অর্থনীতিবিদেরা অংশ নেন বিআইডিএস ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাঙালি অর্থনীতিবিদদের পাশাপাশি। ফ্রান্সের ডানিয়েল থর্নার, রেনে ডুমো; ভারতের অশোক মিত্র ও অর্জুন সেনগুপ্ত; জাপানের সাবুরো ওকিতা ও আকিরা তাকাহাসি; যুক্তরাজ্যের পল স্ট্রিটেন ও মাইকেল লিপটন; যুক্তরাষ্ট্রের গুস্তাভ রানিস, ইয়ারোস্লাভ ভানেক ও হলিস চেনেরী; রাশিয়ার ভদ্মাদিমির কনদ্রাতিয়েভ ও ইলিয়া রেদকো; পোলান্ডের ইয়ান লিপিনস্কি; হাঙ্গেরির আন্দ্রিয়াস ব্রোদি; যুগোস্লাভিয়ার ব্রাঙ্কো হরবাট, আলেকসান্দার বাট প্রমুখ। এদেশের নুরুল ইসলাম, আতাহার হোসেন, এম,এন, হুদা, রেহমান সোবহান, মোশাররফ হোসেন, আনিসুর রহমান, মোজাফ্‌ফর আহমদ, এ.আর. খান, স্বদেশ বোস, মহীউদ্দীন আলমগীর প্রমুখ কীর্তিমান অর্থনীতিবিদ এতে অংশ নিয়েছিলেন। এরকম বিদ্বৎজনের সভা আর এদেশে (এর আগে ও পরে) অনুষ্ঠিত হয়নি বললেই চলে।
এই কনফারেন্সের শেষ দিনে দেশ-বিদেশের অর্থনীতিবিদেরা গেলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সঙ্গে বাংলাদেশের উন্নয়ন-সমস্যা নিয়ে আলোচনা করতে। অর্থাৎ শুধু শুভেচ্ছা জানানোর জন্যে তারা যাননি। গিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধুর উন্নয়ন-চিন্তা, বিশেষত সমাজতন্ত্র নিয়ে তার মূল ভাবনা সম্পর্কে জানতে-বুঝতে। অস্টিন রবিনসন এ সম্পর্কে লিখেছেন:
‘We were anxious to avoid a continuous stream of argument and recrimination as to whether it would be better for Bangladesh to adopt socialist or capitalist policies. That issue had become chose jugee–irrelevant to our discussions. All who were invited came to the conference prepared to treat it as such and we used the words `within the framework of a socialist economy’ as an essential part of the title of the conference.
It was nevertheless, very far from clear what exactly might be meant by ‘as a socialist framework’. It had been clear from the first that Bangladesh was not adopting uncritically any one of the familiar frameworks of the U.S.S.R., of Communist China, of Poland, of Romania or any other prototypes. Among ourselves we sometimes spoke of Yugoslavia as something nearer to a model. But that meant no more than that Bangladesh must be expected to work out her own compromise between a controlled economy and a price-guided economy. When on the last day of the conference we were given the opportunity of discussing the problems of developing Bangladesh with the Prime Minister, Sheik Mujibur Rahman, he was asked what was meant by Bangladesh socialism. His answer was ‘socialism as we shall practise it in Bangladesh’. This was not, as I understand it, a quick and clever repartee to a troublesome question. It was a perfectly accurate reflection of the practical and pragmatic attitude of the Bangladesh government to its problems.’

অর্থাৎ, ‘সমাজতন্ত্র’ বলতে বাংলাদেশের নীতিনির্ধারক বলয়ে কোন ধরনের ব্যবস্থা বোঝানো হচ্ছে সে সম্পর্কে সেদিনের অর্থনীতিবিদদের কোনো স্পষ্ট ধারণা ছিল না। কিন্তু এটুকু তারা জানতেন যে বাংলাদেশ নির্বিচারে কোনো প্রচলিত ছককে অনুসরণ করছে না। এই প্রচলিত ছকের মধ্যে পড়ে সোভিয়েত ইউনিয়ন, চীন, পোলান্ড, রুমানিয়া প্রভৃতি দেশ। নিজেদের মধ্যে যখন তারা আলাপ-আলোচনা করেছেন তখন মাঝে-মধ্যে যুগোস্লাভিয়ার মডেলের কথা উঠেছে। এর বেশি কিছু নয়। ‘নিয়ন্ত্রিত অর্থনীতি’ এবং ‘বাজার-অর্থনীতি’ এ দুইয়ের মধ্যে এক ধরনের নিজস্ব ধারার আপস করতে হবে বাংলাদেশকে এটা অনুমান করা গিয়েছিল। কনফারেন্সের শেষ দিনে মুজিবের সঙ্গে সাক্ষাৎকালে তারা জিজ্ঞেস করেছিলেন বাংলাদেশের পরিস্থিতিতে ‘সমাজতন্ত্র’ বলতে কী বোঝায়? তার উত্তরে মুজিব বলেছিলেন, ‘বাংলাদেশে যে ধরনের সমাজতন্ত্র আমরা অনুশীলন করব সেটাই হবে আমাদের সমাজতন্ত্র’। এটা কোনো জটিল প্রশ্নের মুখোমুখি হয়ে কুশলী রাজনীতিকের দেওয়া তাৎক্ষণিক বা চতুর উত্তর ছিল না। এটা ছিল বাস্তব সমস্যার সমাধান করার জন্য ‘প্রাগমাটিক দৃষ্টিভঙ্গির’ একটি নিখুঁত প্রতিফলন। এই ছিলেন অস্টিন রবিনসনের চোখে শেখ মুজিব- একটি ‘প্রাকটিক্যাল অ্যান্ড প্রাগমাটিক এটিচুডের’ মানুষ। কোনো আদর্শের জড়ত্বে আটকে থাকা ডগমাটিক মানুষ তিনি কোনোকালেই ছিলেন না। এই জঙ্গমতা বিরল।
শেখ মুজিবের প্রায়োগিক ও বাস্তবজ্ঞানমণ্ডিত মনের কথা যখন উঠলই, তখন আরও একটি উদ্ধৃতি তুলে ধরতে চাই। পাকিস্তানের অপশাসনের দিনগুলোর কথা মনে করে বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন তার ‘ক্রমান্বয়ে চলার নীতি’: ‘আমি স্বাধীনতার স্বপ্ন দেখি ১৯৪৭-৪৮ সালে। কিন্তু আমি ২৭ বৎসর পর্যন্ত স্টেপ বাই স্টেপ মুভ করেছি। আমি জানি এদের সঙ্গে মানুষ থাকতে পারে না। আমি ইম্পেশেন্ট হই না, আমি এডভেনচারিস্ট নই। আমি খোদাকে হাজের নাজের জেনে করি, চুপি চুপি, আস্তে আস্তে, মুভ করি সব কিছু নিয়ে।’ এদিক থেকে দেখলে শেখ মুজিব ও দেং শিয়াও পিং-র মধ্যে একটি প্রচণ্ড মিল খুঁজে পাওয়া যায়। এরা দুজনেই ছিলেন (অস্টিন রবিনসনের ভাষায়) ‘প্রাকটিক্যাল ও প্র্যাগমাটিক’ মনের মানুষ। দেং শিয়াও পিং-এর মতো মুজিবও বলতে পারতেন যে বিড়াল কালো না সাদা সেটা বড় কথা নয়, এটি ইঁদুর ধরতে পারে কিনা সেটাই আল্টিমেটলি বিচার্য। মুজিবও এরকম উদাহরণ দিয়ে তার প্রায়োগিক দৃষ্টিভঙ্গির কথা তুলে ধরেছেন। ‘লার্নিং বাই ডুইং’-এর কথা বলেছেন তিনি: ‘কেউ করে শেখে, কেউ দেখে শেখে, আর কেউ বই পড়ে শেখে। আর সবচেয়ে যে বেশি শেখে সে করে শেখে।’ যারা আইডিওলজির চশমা পরে পৃথিবীটাকে দেখে তাদের উদ্দেশে তিনি বলেছেন মাটির কাছাকাছি থাকার কথা:
“এদের আমি বলতাম, জনসাধারণ চলেছে পায়ে হেঁটে, আর আপনারা আদর্শ নিয়ে উড়োজাহাজে চলেছেন। জনসাধারণ আপনাদের কথা বুঝতেও পারবে না, আর সাথেও চলবে না। যতটুকু হজম করতে পারে ততটুকু জনসাধারণের কাছে পেশ করা উচিত।”
[ক্রমশ]

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s